দায়িত্ব

মোসা: নাজমী খাতুন ২০ অক্টোবর,২০১৯ ২০ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ০.০০ ()

শিক্ষক হিসাবে আমাদের ওপর সমাজের অনেক দায়িত্বই চলে আসেন। ইচ্ছা হোক বা না হোক পালন করতেই হয়। কারণ প্রান্তিক পর্যায়ের লোক গুলো আমাদের ওপর খুব ভরসা রাখে। আমাদের বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গুলো যদি তাদের মত সততা আদর্শ সবকিছু দিয়ে সহকর্মীদের কাছ থেকে সহযোগিতা হাতটি বাড়িয়ে দেয় একদিন যে কোন বিদ্যালয় তার অবস্থার পরিবর্তন করতে পারবে। কিন্তু এখনো আমাদের মনমানসিকতা অনেক নিচে তার পরিচয় দেয়।আমরা যদি আমাদের মানসিকতার পরিবর্তন না করতে পারি তাহলে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা কখনোই ভালো মান অর্জন করতে পারবে না। পরিশ্রম ছাড়া সাফল্য কখনোই আসবেনা। প্রযুক্তির সাথে তাল মিলাতে না পারলে আমরা অনেক পিছিয়ে পড়বো এটা জানা সত্ত্বেও আমরা প্রযুক্তিকে ব্যবহার করতে দেরি করছি অনীহা প্রকাশ করছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আজকাল আমাদের আধুনিকতার পরশ এনে দিয়েছে। শিক্ষা ব্যবস্থায় আইসিটি প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলেও তার সঠিক প্রয়োগ আমাদের কর্ম ক্ষেত্রে হয় না। আর এর জন্য শিক্ষকের মানসিকতা ও কর্মকর্তাদের তদারকির অভাবে এই জিনিসটা পরিবর্তন করা সম্ভব হচ্ছে না।আমরা নিয়মের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে যতই বক্তৃতা দেই না কেন যতক্ষণ না নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হতে পারব ততক্ষণ পর্যন্ত কোনো সফলতা আসবে না। তাই নিজের স্বার্থে চিন্তা না করে আমরা যদি সমাজের স্বার্থের কথা চিন্তা করি তাহলে কে কি বলছে তা না ভেবে নিজের অবস্থানে সৎ থেকে শুভ চিন্তাগুলোকে কাজে লাগাতে হবে।আমরা যদি শিক্ষক ছাত্র ও অভিভাবকের সমন্বয় না ঘটাতে পারি একাত্মতার না আনতে পারি তাহলে শিক্ষায় বিপুল পরিবর্তন কখনোই আমার সম্ভব হবে না।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
রাহিদ আলী
০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৯:২২ পূর্বাহ্ণ

খুব সুন্দর করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথা লিখার জন্য ধন্যবাদ