আদর্শ শিক্ষক হওয়ার উপায় বিল গেটস এর থিওরি---------------------------------

মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান ০৫ ডিসেম্বর,২০১৯ ১৫ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

আমি কাউকে কিছু শিক্ষা দিতে পারব না, আমি শুধু তাদের চিন্তা করাতে পারব – সক্রেটিস।
আমরা সকলেই জানি সক্রেটিস ছিলেন একজন আদর্শ শিক্ষক। তাঁর দুইটি কথা বলব
১. বিস্ময় হল জ্ঞানের শুরু (শিক্ষক) এবং
২. টাকার বিনিময়ে শিক্ষা অর্জনের চেয়ে অশিক্ষিত থাকা ভাল।
একজন আদর্শ শিক্ষক তিনিই, যাঁর শিক্ষা ও জ্ঞান স্মৃতি দীর্ঘদিন শিক্ষার্থীর স্মরণে থাকে।
বিশ্বের শীর্ষ ধনী ও সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের কথা আমরা সকলেই জানি। শিক্ষা জীবনে সঠিক শিক্ষা গ্রহণের কারণেই তিনি আজ তাঁর জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে আজ বিশ্বে নিজের সুনাম করেছেন। বিশ্বকে নতুন কিছু দিয়েছেন। সেই গেটস যে শিক্ষকের নিকট থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেছেন  তাঁর দৃষ্টিতে একজন অনুপ্রেরণাদায়ক শিক্ষকের যে সাধারণ বৈশিষ্ট্য থাকতে হবে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন।
শিক্ষক যদি সত্যিকারের সৃজনশীল হন, মনস্তাত্ত্বিকভাবে অনুধাবনের চেষ্টা করেন তাহার শিক্ষার্থীদের—তবে সেই শিক্ষককে হৃদয়ে ধারণ করে শত শত শিক্ষার্থী। এমন কিংবদন্তি শিক্ষক অতীতে বিশ্বে অনেকেই ছিল যা আমরা ইতিহাস থেকে দেখতে পাই। এখনো নিশ্চয়ই আছেন কেহ কেহ, যাহারা ভবিষ্যতে হয়তো তাহারই কোনো এক বিখ্যাত ছাত্রের স্মৃতি-বয়ানে বাঁচিয়া থাকিবেন চিরকাল।
আদর্শ শিক্ষক হওয়ার উপায় কি বা তাঁর কিকি বৈশিষ্ট্য থাকা প্রয়োজন।
বিল গেটসের মতে—সাফল্য একটি পরিপূর্ণ শিক্ষক। একজন মানুষ কখনো ব্যর্থ হইবে না—এই বোধ জাগরিত  করিয়া দেন ওই শিক্ষক। গেটস মনে করেন
শিক্ষককে যেকোনো বিষয়ে শিক্ষার্থীদেরকে উদ্দীপনা দিতে হবে। একজন অনুপ্রেরণাদায়ক শিক্ষক কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ের প্রতি আকৃষ্ট থাকেন না। বিল গেটসের শিক্ষাগুরু ফেইনম্যান একবার গেটসকে আগুনের বৈশিষ্ট্য নিয়ে ব্যাখ্যা দেয়ার সময় দারুণ উত্তেজিত ছিলেন। গেটস এর মতে, আদর্শ শিক্ষক অদ্ভুত রকমের উদ্দীপনা জাগাতে পারেন শিক্ষার্থীর মনে। এমন কোনো বিষয় নেই, যার মধ্যে এই শিক্ষক আকর্ষণ খুঁজে পান না।
আদর্শ শিক্ষক কঠিন বিষয় বস্তুকে শিক্ষার্থীরর জন্য সহজ করে দেন।
গণিত,পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন কঠিন বিষয় হতে পারে। কিন্তু এমন অনেক শিক্ষক আছেন, যাঁরা পাথরও গলিয়ে ফেলেন অনায়াসে। তাঁকে বিষয়গুলোকে সহজ করে উপস্থাপন করতে হবে।
গেটস এই বিষয়টি নিয়ে মনে করেন, আদর্শ শিক্ষক হতে হলে অবশ্যই বিষয়বস্তু কে সহজ থেকে সহজতর করার পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারলেই আদর্শ শিক্ষক হতে পারবে। উদাহরন হিসেবে তিনি তাঁর শিক্ষক ফেইনম্যান এর একটি ক্লাসের কথা বলেছেন। তিনি একদিন ক্যালিফোর্নিয়ার একটি স্কুলে পদার্থবিজ্ঞান সম্পর্কে ক্লাস নিচ্ছিলেন। ওই ক্লাসের শিক্ষার্থীদের পদার্থবিদ্যা সম্পর্কে কোনো ধারণা ছিল না। কিন্তু ক্লাসের পর প্রত্যেক শিক্ষার্থী যেন পদার্থবিদ হয়ে গেলেন। এটাই আদর্শ শিক্ষকের গুণাবলী।
আদর্শ শিক্ষক বিষয়ের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার কৌশল শিখতে হবে।
অনেক সময় শিক্ষক পড়ানোর সময় দেখা যায় যে, শিক্ষার্থীদের মনোযোগ থাকে না। কিন্তু একজন আদর্শ শিক্ষকের পাঠদানের সময় শিক্ষার্থীরা মনোযোগ দিয়ে পাঠ শুনেন, বুঝেন এবং শিক্ষককে প্রয়োজনীয় প্রশ্ন করেন। তিনি  বিষয় বস্তুর সঙ্গে তিনি শিক্ষার্থীদের জড়িয়ে ফেলেন।
আদর্শ শিক্ষক হতে হলে আগ্রহের সীমারেখা থাকতে পারবে না।
আদর্শ শিক্ষকের, আগ্রহ কোথাও সীমাবদ্ধ থাকে না। উদাহরন হিসেবে তিনি তাঁর শিক্ষক ফেইনম্যান এর কথা বলেছেন। ফেইনম্যান পদার্থবিদ্যার শিক্ষক হয়েও অন্য বিষয়ের লেখা অনুবাদের চেষ্টা করতেন। বাদ্যযন্ত্র বাজানো শিখেছেন মনপ্রাণ দিয়ে। এমনকি ক্লাস নেওয়ার আগেও নিজেকে উৎফুল্ল রাখতে তিনি বঙ্গ বাজিয়ে আসতেন। তারমানে সকল বিষয়ে আদর্শ শিক্ষকের সকল বিষয়ে আগ্রহ থাকতে হবে। নির্দিষ্ট বিষয় বস্তুর উপর সীমাবদ্ধ থাকা যাবে না।
সভ্যতা বিকাশের এক আদর্শ শিক্ষক হওয়ার ফর্মুলা লুকাইয়া আছে বিল গেটস এর কথাগুলোর মধ্যে। কৌতূহল, আকর্ষণ, উৎসাহ, আগ্রহ—প্রভৃতি বৈশিষ্ট্য যদি মানুষের মধ্যে না থাকে তবেই একজন আদর্শ হওয়া যায় না। অর্থাৎ  এই সব বৈশিষ্ট্য জাগ্রত করিয়া একজন আদর্শ শিক্ষক হয়ার উপায় খোঁজে নিতে হবে।
তবেই  বিজ্ঞানের বিকাশ ঘটবে আরো ত্বরান্বিত গতিতে।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মো: আব্দুল মোমিন
০৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৯:০৯ পূর্বাহ্ণ

অনেক জরুরী তথ্য।ধন্যবাদ।