লকডাউনে নদীতে দূষণ কম হয়েছে বলে এবারের ইলিশ হবে সুস্বাদু

মোঃ তোফায়েল হোসেন ০৯ জুলাই,২০২০ ৩৮ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

করোনা পরিস্থিতিতে কয়েকমাস যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় নদীতে দূষণ কম হয়েছে বলে এবারের ইলিশ সুস্বাদু হবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া, এবার নদীর পানি বৃদ্ধি ও অধিক বৃষ্টির কারণে ইলিশ বেশি ধরা পড়ছে বলে জানা গেছে।

চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটে কর্মরত ইলিশ গবেষক ড. মো আনিসুর রহমানের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা ইউএনবির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ড. মো আনিসুর রহমান বলেন, ইলিশের মৌসুম সামনে (আগস্ট, সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে) আসছে। এবারের ইলিশ হবে সুস্বাদু। কারণ আমরা নদীর পানি পরীক্ষা করে দেখেছি এবার করোনার কারণে দীর্ঘসময় লকডাউনের ফলে নদীতে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় নদীর পানির দূষন কমে গেছে। তাই ইলিশসহ অন্যান্য মাছ বিচরণ করতে পেরেছে অনায়াসে, নির্ভয়ে।

তিনি বলেন, মাছের খাদ্য আহরণের জন্য নদীর অবস্থা বেশ ‘কনজেনিয়েল কনডিশন’ ছিল বিধায় এবারের ইলিশ হবে বেশি সুস্বাদু, বেশি স্বাদের।  

এদিকে, চাঁদপুরের বৃহত্তম মাছ ঘাট বড় রেল স্টেশনের মাছ ঘাটে ইলিশের আমদানি বাড়লেও শহর ও শহরতলির হাট বাজারের খুচরা বিক্রিতে দাম কমছে না।

জেলা শহরের বড় স্টেশন মাছ ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, অনেক মাছের ট্রলার ও সাত-আটটি ট্রাক, মিনি ট্রাক ও পিকআপ বিপুল পরিমাণ মাছ নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলীয় ভোলা, হাতিয়া, চর আলেকজান্ডার, চর ফেশন, লক্ষীপুরের কমলনগর, চাঁদপুরের হাইমচরের চর ভৈরবী এলাকা থেকে ইলিশ মাছ নিয়ে এসেছে। আবার বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য ইলিশ মাছ লোডিং হচ্ছে ট্রাকে, মিনি ট্রাকে বা পিকআপে।

মৎস্য বণিক সমিতির সভাপতি আব্দুল খালেক মাল জানান, কয়েকদিন থেকে দক্ষিণাঞ্চলীয় জেলা থেকে এ ঘাটে ট্রলার, ট্রাক ও মিনি ট্রাকযোগে প্রচুর ইলিশ মাছ আসছে। প্রতিদিনই দুই-তিন হাজার মণ ইলিশ মাছ আমদানি হয় এ মাছ ঘাটে।মাছের ব্যবসায়ী ও দিনমজুররা এখন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম বকাউল জানান, এখান থেকে মাছ ট্রাক ও মিনি ট্রাকযোগে ঢাকার কারওয়ান বাজার, আজমপুর, বাইপাইল, পূবাইল, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, শায়েস্তাগঞ্জ, সিলেট, মৌলভীবাজার ও শ্রীমঙ্গলে এলাকায় রপ্তানি হয়। তাই মাছ ঘাট সংলগ্ন বরফ কল-ফ্যাক্টরিগুলো ব্যস্ত।

ঘাটের ক্ষুদ্র মাছ ব্যবসায়ী সাহাবুদ্দনি সরদার ও মানিক বলেন, ‘আমরা এখান থেকে পাইকারি দরে মাছ কিনে জেলার বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করি।’

জেলা শহরের মাছ বাজারে গিয়ে দেখা যায়, এক কেজির ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার টাকা, ৮০০ গ্রামের ইলিশ ৭০০-৮০০ টাকা, ৫০০-৬০০ গ্রামের ইলিশ কেজি প্রতি ৫০০-৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
তাছলিমা আক্তার
১০ জুলাই, ২০২০ ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ

আপনার গঠন মূলক মতামত , লাইক , রেটিং এর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ । ভালো থাকুন , সুস্থ থাকুন , নিজেকে নিরাপদে রাখুন । শুভকামনা রইল ।


অজয় কৃষ্ণ পাল
১০ জুলাই, ২০২০ ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা ও অভিনন্দন । ভালো থাকুন , সুস্থ থাকুন , নিজেকে নিরাপদে রাখুন । আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে লাইক ও রেটিংসহ মূল্যবান মতামত প্রদানের অনুরোধ রইল