ম্যাগাজিন

শব্দ দিয়ে ছড়া নিয়ে আলোচনা ইকড়ি মিকড়ি

নাসরীন আক্তার খানম ০২ নভেম্বর,২০১৯ ৪১ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ১.০০ রেটিং ( )

ছড়াঃইকড়ি মিকড়ি
--
ইকড়ি=গতিশীলভাবে কর্মফল সংগ্রহ করি।
মিকড়ি=সীময়িত কর্মফল সংগ্রহ করি।
চাম=(আমাদের) চরে বেড়ানোর বা রুজি-রোজগারের এলাকায় (=চাম)
চিকড়ি,=(ঘুরে ঘুরে)কর্মফল চয়ন করে আনি।
চামের কাঁটা মজুমদার।= সেই এলাকায় (পথের) কাঁটা (হয়ে দেখা দেয়)রাজকর্মচারী ( মজুমদার)।
ধেয়ে এল দামোদর=(তার উপর) ফড়ে-পাইকার (দামোদর( ধেয়ে আসে।
দামোদরের হাঁড়ি-কুঁড়ি।=ধেয়ে আসে তাদের (হাঁ করে গিলে খাওয়ার)ভাণ্ড (হাঁড়ি) ও কুণ্ড (কুঁড়ি)।
দাওয়ায় বসে= (তার থেকে বেঁচে-বাঁচিয়ে) ঘরের দাওয়ায় (বা দরজার সামনে) বসে
চাল কাঁড়ি।=(ধান থেকে) চাল কুণ্ডন করে বের করি।
চাল কাঁড়তে হল বেলা,=( এত সব করে) চাল কুণ্ডন করতে বেলা হয়ে যায়,
ভাত খাওগে দুপুরবেলা।=( অতএব প্রথম প্রহরে খাওয়া নয়,একেবারে) দ্বিপ্রহরে খেয়ো।
ভাতে= ( কিন্তু খাবে কি করে!ডাকাত পড়ার মতো) সেই অন্নে
পড়ল মাছি,=পড়েছে ছিঁচকে চোর(=মাছি),
কোদল দিয়ে চাঁছি।= থানা-পুলিশ (=কোদাল) করে তাকে তাড়ানোর চেষ্টা করি(=চাঁছি)।
কোদাল হল ভোঁতা,=(কিন্তু) থানা-পুলিশে (কোদাল)কাজ করে না(=ভোঁতা),
খা কামারের মাথা।=(অতএব)থানা-পুলিশ সৃষ্টিকারীদের (=কামারের)পাণ্ডাদের (=মাথা) খাও।
♦ সাধারণত মনে করা হয় ছড়াগুলো অর্থহীন কিন্তু ক্রিয়াভিত্তিক অখণ্ড দৃষ্টিভঙ্গীতে দেখলে আসলে তা মনে হয় না,বঙ্গীয় শব্দার্থকোষ ছড়াটিকে এভাবে বিশ্লেষণ করেছেন।
জ্ঞানরূপ দুধ পরিশীলিত হতে হতে যখন মাখন হয়ে ঘি-তে পৌঁছায় তখন তা গন্ধ ছড়ায়,তখনই তা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে( জনশ্রুতির অমৃতলোকে) যায় এবং একরম ছড়া লেখা সম্ভব হয়।
ঘি পর্যন্ত মালিকানা থাকে কিন্তু ছড়ানো গন্ধের কোনো মালিক থাকে না।
--কৃতজ্ঞতাঃ বঙ্গীয় শব্দার্থকোষ। 

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মেফতাহুন নাহার
১৩ জুন, ২০২০ ০১:৩৫ পূর্বাহ্ণ

শ্রেণি উপযোগী কন্টেন্ট আপলোড করে শিক্ষক বাতায়নকে সমৃদ্ধ করায় পূর্ণরেটিংসহ আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাই। আমার আপলোড করা কন্টেন্টগুলো দেখার এবং আপনার গঠনমূলক মতামতসহ রেটিং প্রদান করার জন্যবিনীতভাবে অনুরোধ রইলো।