চিত্র

সিন্ডিকেট কি?

দিগন্ত কুমার রায় ১২ ডিসেম্বর,২০১৯ ২২১ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৪.০০ রেটিং ( )

“সিন্ডিকেট” কথাটা আমরা অনেকেই শুনেছি।

প্রায় সময় পেপার পত্রিকায় ও টিভিতে খবরে দেখি যে, সিন্ডিকেট চক্রের কারণে বাজারে সব কিছুর দাম খুব বেশি। আসলে আমরা সিন্ডিকেট করা মানে অনেকটা জিম্মি করা বুঝি। কিন্তু আসলে সিন্ডিকেট কী এবং কেন করা হয়, সেটা আমরা তেমন জানি না। আজকে আমরা এই “সিন্ডিকেট” সম্পর্কে একটু বাস্তবিকভাবে বোঝার চেষ্টা করবো। দেখা যাক, আমরা কতটুকু বুঝতে পারি।

ধরুন, রমজান মাসে পিঁয়াজের খুব চাহিদা থাকে। এই চাহিদা সারাদেশ জুড়ে বৃদ্ধি পায়। এ সময় যাতে পিঁয়াজের দাম না বাড়তে পারে, সেজন্য সরকার অতিরিক্ত পিঁয়াজ আমদানি করে বাজারে পিঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে চায়। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা সেসব পিঁয়াজ গুদামে রেখে দিয়ে বাজারে পিঁয়াজের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। যারফলে পিঁয়াজের দাম বেড়ে যায়। আর যখনই পিঁয়াজের দাম বেড়ে যায়, তখন ব্যবসায়ীরা সেই গুদামে মজুদ করে রাখা অতিরিক্ত পিঁয়াজ বেশি দামে বাজারে ছাড়ে। আর এই ঘটনাটা হলো এক প্রকারের সিন্ডিকেটের উদাহরণ।


বাজেট ঘোষণার আগে ও পরে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস জিনিস এরকম সিন্ডিকেট করে রাখে এবং যখন সেটার দাম বৃদ্ধি অয়ায়, তখন সেটা বাজারে ছাড়ে।

এই সিন্ডিকেটের ফলে মূলত পাইকারি ব্যবসায়ীরা, মধ্যস্থতাকারীরা এবং খুচরা ব্যবসায়ীরা লাভবান হয়। আমাদের দেশে বেশিরভাগ সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত কিছু অসাধু পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা। এরফলে মূলত ক্ষতিগ্রস্ত হয় সাধারণ জনগণ।

বেশ কিছু দিন আগে আমরা দেখেছি যে, এবছর কৃষক ধানের দাম তেমন পায় নি। কিন্তু কেন তারা ধানের দাম পায় নি? এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর বলুন তো। আসলে যারা কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনে, তারা এবছর এক প্রকার সিন্ডিকেট করেছিলো। সারাদেশে তারা নিজেরা একটা দাম ঠিক করেছিলো যে, সেই দামের থেকে বেশি দামে কেউ কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনবে না। যারফলে কৃষকরা বাধ্য হয়ে লস হওয়া সত্ত্বেও কম দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে। আর একারণে এবার কৃষক ধান বিক্রি করে লোকসানে পড়েছে।

আসলে ব্যবসার ক্ষেত্রে যারা সিন্ডিকেট করে, তারা মূলত পরোক্ষভাবে জিম্মি করছে। এখন প্রশ্ন হলো যে, শুধুই কি এসব ব্যবসাতেই সিন্ডিকেটের সমস্যা আছে নাকি অন্য ক্ষেত্রেও এরকম সমস্যা আছে?  ইদের সময় বাসের টিকিট এর ক্ষেত্রেও এরকম ঝামেলা হয়। টিকিট থাকা সত্ত্বেও টিকিট নেই এরকম অজুহাত দেখিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি টাকা নেওয়ার জন্যও  কিন্তু সিন্ডিকেট করে।  

ব্যবসার ক্ষেত্রে এই সিন্ডিকেট একটা বড় বিষয়। এর মাধ্যমে কেউ দুইদিনেই অনেকে বড়লোক হয়ে যেতে পারে। তবে এটা মূলত পরিস্থিতি বুঝে করা হয়। তবে কয়েকজনের কারনে ভোগান্তির শিকার হন অসংখ্য মানুষ।

ধন্যবাদ।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মো. সাখাওয়াত হোসেন
২২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ণ

আপনার কনটেন্টটি শ্রেণিউপযোগী হয়েছে ধন্যবাদ, কনটেন্টটি শিক্ষার্থীদের শিখন দীর্ঘস্থায়ী করবে বলে আমার বিশ্বাস। (সাখাওয়াত, ঝিনাইদহ, ০১৭১৫৬৭১০৯৬, ই-মেইল-shbiddut@gmail.com)


দিগন্ত কুমার রায়
১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৫:০৮ অপরাহ্ণ

.