জুয়েল রানা। সহকারি শিক্ষক(বিজ্ঞান)। হতেয়া. এইচ. এইচ. ইউ উচ্চ বিদ্যালয়। ICT4E অ্যাম্বাসেডর। সখীপুর। টাঙ্গাইল। ০১৭২২-৪৫০৪০৬ ।

জুয়েল রানা ০৩ আগস্ট,২০২০ ১৩০ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

"মাকড়সা"
পড়ন্ত বিকেল,রবি পশ্চিম আকাশে হেলান দিয়েছে, একটু ক্ষন আগে।আমার ঘুম শেষ করেছি মাত্র।আমার বিছানার পাশেই জানালা।আমি জানালাটা খুলে জিমিয়ে বসলাম। আকাশ ঘোলাটে,মেঘেরা জমা হয়েছে যেন কিছু বললেই কেঁদে দেবে।আমি সুখ ভঙ্গিমায় আকাশ পানে তাকালাম। আমি কিছুই বলিনি তবুও,ঝড়-ঝড় শব্দে কেঁদে দিল।তার কান্নার জল আমার কষ্ট গুলো ভুলিয়ে দিচিছল।এমন সময় হঠাৎ চিৎকার। আমি অবাক কিছু বুঝে উঠতে পারছিলামনা, তবে যা ঘটে ছিল তাই বলছি :
আমি একজন মা মাকড়সা। আমার সমস্ত শরীর মাথা নুয়ে শ্রদ্বা করি তোমাদের। তোমারা সৃষ্টি সৃষ্ট বলে খ্যাত।ছয় পায়ে ভর করে চলা আমার। আমি চেয়ে দেখি শুধু তোমাদের। তোমরা কত সহজে নিজেদের পাল্টে ফেল।স্বাছন্দ বোধ কর সহজেই।কত আবিজাত্যে গড়া তোমাদের আবাস গৃহ। তোমাদের একটা প্রশ্ন করি তোমাদের এত কষ্ট করে গড়া গৃহটা যদি কেউ ভেঙে দেয়,তবে কত দস্তা-দস্তি,মারামারি, দখল দারিত্ব,খুনাখুনি চলে তা কি ভেবে দেখছ একবার, ভাবনি।আমি অবাগ হই তখনি, যখন দেখি তোমরা এত জ্ঞান, বুদ্ধি, বিশালতায় বাস করে,উধে বসে কেন যে নিগুড় তথ্যটা কে যাও,তা আমার বোধ গম্য নয়।তোমাদের বাস গৃহ পৃথিবীর বুকে ময়লা মনে কর,নিশ্চই না।আল্লাহ্‌ পৃথিবীতে তোমরা সব চেয়ে উৎকৃষ্ট। কিন্তু আমার কথা হলো আমি মাকড়সা, আমাকেই সবচেয়ে বেশী সময় অবস্থান করতে হয় গৃহে।যখন আমার পেটে আমার উওরসুরিরা অবস্থান করে।আমি যখন খাবার জন্য দৌড়া-দৌড়ি করতে পারিনা। আমার বাসা যদি কোন প্রাকৃতিক জড়,ঘূর্ণি ঝড়,হ্যারিকন,টনেটো অথবা সিডরে ভেঙে যেত তবে আফছোছ থাকতো না। এমন কি আমার কোন স্বজাতিরা ভাঙলেও আফছোছ থাকতো না।কিন্তু এর কোনটাই হয়না।কিন্তু বড় কষ্ট আর পরিতাপের বিষয় হলো এই তোমার আবাস গৃহের দেয়ালে, ঘরের কোনে,অব্যবহৃত জায়গায়,ছাদের নিচে,খাটের নিচে,ফ্রিজের তলে,অথবা তোমার সোফাসেটের নিচে আমার নিজ গৃহটা তৈরি করি।কত কষ্ট করে নিপুন হাতে গড়ি আমার আবাস গৃহ। যেখানে একটু সুখ নিদ্রা যাবো বলে। কিন্তু ভয়ে সব সময় আটস্থ থাকি। কেননা তুমি নিজে চিন্তিত, ছেলে -মেয়ে কে এবং স্ত্রী কে করো বকাঝকা।তোমার কড়া শাসন থেকে বাদ পড়েনি কাজের ছোট্র মেয়েটিও।শিশু শ্রমে মানবাধিকার লঙ্গন করছ তা তোমার বিবেক নাড়েনি।তোমার বিবেক আর টনক নড়েছে আমার আবাস গৃহ দেখে। যে গৃহে আমি, আমার বাচ্চারা এবং স্বামী নিয়ে সংসার কাটাই।অথচ আমার ঘরটা তোমার কাছে আবর্জনা। এ কারনে রান্না করা ভূয়াটাকেও বকাঝকা করে তুঙ্গে উঠিয়েছ কেন পরিষ্কার করেনি মাকড়সার জাল।তোমাদের প্রতি আমার কোন অভিযোগ নেই,অভিমান নেই।কিন্তু কষ্টের বিষয় এই আমার সন্তানরাও তোমাদের কটাক্ক আচরন উপলব্দি করবে।আমার সন্তানরাও সুখী হবে না এই ভেবে খুব কষ্ট হয়।আমি তো সামান্য মাকড়সা, আমার মতো অনেক প্রানী আছে যারা প্রতিনিয়ত মানুষ প্রজাতির থাবানলে বিলীন হয়ে যাচেছ। তোমাদের সামান্য সহানুভূতি প্রকৃতির এই বিভিন্ন প্রানীর প্রজাতিগুলো কে বাঁচিয়ে রাখতে সাহায্য করে।প্রানবন্ত হয়ে উঠবে পৃথিবী নামক বাগান। 

বি.দ্র: পৃথিবীতে অসংখ্য খারাপ মানুষ থাকলেও,একটা খারাপ বাবা মা নেই।পৃথিবীর সকল প্রানী তার সন্তানের জন্য ভালবাসা উজাড় করে দেয় তার জীবন থেকেও বেশী।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
ইশরাত জাহান
০৪ আগস্ট, ২০২০ ০৭:১৯ পূর্বাহ্ণ

বাহ! পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা।এরকম আরও সুন্দর সুন্দর লেখা প্রত্যাশা করছি।আমার বাতায়নে আমন্ত্রণ রইল।


মোসাঃ রাফিয়া খাতুন
০৩ আগস্ট, ২০২০ ০৬:৪৯ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ স্যার আপনার কনটেন্ট মানসম্মত হয়েছে লাইক পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা রইল | শিক্ষক বাতায়ন কন্টেন্ট আপলোড করে করে বাতায়ন কে আরো সমৃদ্ধ করার জন্য আপনাকে আবারও অশেষ ধন্যবাদ | ঘরে থাকুন ,সুস্থ থাকুন নিরাপদে থাকুন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন | যদি সময় পান তবে আমার বাতায়ন বাড়ি থেকে একবার ঘুরে আসবেন ইনশাআল্লাহ |


জুয়েল রানা
০৩ আগস্ট, ২০২০ ১১:৫৪ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ ম্যাম


মোঃ রওশন জামিল
০৩ আগস্ট, ২০২০ ০৬:৩৮ অপরাহ্ণ

পূর্ণরেটিং সহ শুভ কামনা। কন্টেন্ট আপলোড করে প্রাণপ্রিয় বাতায়নকে সমৃদ্ধ করার জন্য ধন্যবাদ।।


জুয়েল রানা
০৩ আগস্ট, ২০২০ ১১:৫৪ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ স্যার