facebook এর আলোচ্যবিষয়/আপনি যা শিরোনাম দেন, মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, প্রভাষক(ইংরেজী),কুমিরা আবাসিক বালিকা স্কুল এন্ড কলেজ, কুমিরা,সীতাকুন্ড, চট্টগ্রাম।

মোঃ খোরশেদ আলম ১১ সেপ্টেম্বর,২০২০ ৭৬ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৪.৬৭ ()

facebook এর আলোচ্যবিষয়/আপনি যা শিরোনাম দেন।
facebook এর বদৌলতে আমরা অনেক লিখা লিখছি। এর ফলে কারো কারো হাতের লিখা সুন্দর হচ্ছে এটা বলা যাবেনা। তবে অনেকের টাইপিং স্পীড বাড়ছে। আর পড়ার ক্ষেত্রে ও ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে। হরেক রকম বিষয়ে বিভিন্ন স্টাটাস পড়তে পড়তে পড়ার প্রতি যেমন আগ্রহ বাড়ছে ,তেমনি বিভিন্ন মানের লিখা পড়ে তার অর্ন্তগত মর্মাথ অনুধাবনের সক্ষমতার ও উন্নতি হচ্ছে নি:সন্দেহে।আর একটা দিকে দেখা যায় প্রেম ভালোবাসা জাতীয় লেখাযোখার চেয়ে ধর্মীয় লেখার পরিমান বেশী। এর কারন হিসাবে আমরা কি ধরে নিতে পারি এ যান্ত্রিক এবং ভার্সুয়াল জগতে মানুষ কি প্রেম ভালোবাসার উপর বিশ্বাস একেবারেই হারিয়ে ফেলেছে? এবং মানুষ কি ধর্মকেই শান্তিপুর্ণ জীবনযাপনের একমাত্র উপায় হিসাবে মেনে নিতে শিখে গেছে? আবার ধর্মীয় বাকযুদ্ধ ও ব্যপকভাবে পরিলক্ষিত হয়।এক্ষেত্রে কি আমরা মনে করতে পারি আমাদের ধর্মীয় জ্ঞান অনেক বেশী হয়ে গেছে , যা আমরা নিয়ন্ত্রন করতে পারছিনা? আবার এমনও কি কিছু ঘটতে পারে প্রতিটি ধর্মের ফুটো খুুঁজা আমরা যে ভাবে শুরু করেছি ,বর্তমান প্রচলিত ধর্ম বাদে অত্যন্ত সুকৌশলে নতুন একটি ধর্মমত প্রচলন করার জন্য ক্ষেত্র্র তৈরি করছি? শেষোক্ত প্রশ্নের অবতারনা হওয়ার কারন হলো, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এক নং ধর্ম ইসলাম এবং দুই নং ধর্ম হিন্দু ধর্ম। facebook এই দুই ধর্ম নিয়েই যাবতীয় পোষ্ট ।এবং এ দুইয়ের মাঝখানে একদল যারা নাস্তিক হিসাবে আখ্যায়িত তারা আছে কেবল ধর্মের যুক্তি হীনতা প্রমাণ করার জন্য সারাক্ষন ব্যস্ত।কাউকে দেখা যাচ্ছে ইসলাম টুপি কোথা থেকে পেয়েছে, পাগড়ী কোথা থেকে পেয়েছে তা নিয়ে বিস্তর গবেষনা করেছে।এসব তো আপনি ও জানেন কালছার । আর ইসলামে নবী যে সকল কালছার পালন করেছেন তাকে সুন্নাহ বলা হয়েছে। এতে তো কারো ক্ষতি হচ্ছে না। যাহা কারো ক্ষতিকর নয় তাহা পালনে সমস্যা কোথায়? যারা নাস্তিক হিসাবে আছে ,তাদের ভিতরে ও গোজামিল আছে। নাম মোহাম্মদ ইরফান। কিন্তু নিজেকে প্রতিষ্টিত করতে চায় নাস্তিক হিসাবে। মোহাম্মদ বাদ দেয়ার হিম্মত নাই।আবার তারা কেউ কেউ শুক্রবারের নামাজও পড়ে। আর একদল আছে ইদ, কোরবানের নামাজ পড়ে।আবার হিন্দুদের মধ্যে ও দেখা যায়, নাস্তিক আছে।তাদের ভাষায় ভগবান মানে ভাউতাবাজি। কিন্তু বিভিন্ন হিন্দু ধর্মীয় রীতি নীতি পালনে তাদেরকেও দেখা য়ায়।ব্যাপারটা বেশ গুলমেলে।এটাকি শুধুই কথার কথা?

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
বিনয় কুমার বিশ্বাস
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৭:৫০ অপরাহ্ণ

মুজিব জন্মশতবর্ষের শুভেচ্ছা রইল । পূর্ণ রেটিং ও লাইকসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত , রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি ।ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন। নিরাপদে থাকুন। ধন্যবাদ । মন্তব্য করুন।


মীর্জা মোঃ মাহফুজুল ইসলাম
১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৯:০৬ পূর্বাহ্ণ

Best,of,luck,Visit,my,page.আমার কনটেন্ট লিংক- https://www.teachers.gov.bd/content/details/678323


রফরফের নুর সিদ্দিকা
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৭:০৫ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও ধন্যবাদ। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে লাইক, রেটিং ও আপনার সু-চিন্তিত মতামত দেওয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


মোঃ শফিকুল ইসলাম
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৫:৪২ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও ধন্যবাদ। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে লাইক, রেটিং ও আপনার সু-চিন্তিত মতামত দেওয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


মো: নাসির উদ্দিন
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১২:২৩ অপরাহ্ণ

Thanks for your nice writing about facebook.