ভিয়েতনামি লাল জাম্বুরা ও থাই বারমাসি জাম্বুরার উপকারিতা !!

নাজমুন্নাহার শিউলি ১৭ সেপ্টেম্বর,২০২০ ২১ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

ভিয়েতনামি লাল জাম্বুরা ও থাই বারমাসি জাম্বুরার উপকারিতা !!


ভিয়েতনামের লাল জাম্বুরা অসাধারণ সৌন্দর্যপূর্ণ লাল। 

জাম্বুরা দেখতে বাহিরে ও ভেতরে যেমন লাল, তেমনি খেতে পর্যাপ্ত সুস্বাদু-মিষ্টি রসালো। অন্যান্য জাম্বুরার চেয়ে ভিয়েতনামের লাল জাম্বুরা অধিকমাত্রার পুষ্টি এবং ঔষধি গুন সম্পন্ন। তাই বিভিন্ন দেশে অধিক মূল্যে এ জাম্বুরা বিক্রয় হয় !!


জাম্বুরা বা বাতাবি লেবু এক প্রকার লেবু জাতীয় টক-মিষ্টি ফল। এর ইংরেজি নাম Pomelo (pummelo বা pommelo) এবং বৈজ্ঞানিক নাম Citrus maxima (সাইট্রাস ম্যাক্সিমা) বা Citrus grandis (সাইট্রাস গ্র্যান্ডিস) ইত্যাদি নামে পরিচিত। ফলের বাইরের দিকটা যেমনই হউক ভেতরের কোয়াগুলো সাদা, গোলাপী ও লালচে রঙের। এর খোসা বেশ পুরু এবং খোসার ভিতর দিকটা ফোম এর মতো নরম। 


জাম্বুরা বা বাতাবি লেবু একটি দারুণ উপকারি ও পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ ফল। এটি ঠাণ্ডাজনিত সমস্যায় বেশ উপকারি। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। জাম্বুরাতে প্রচুর ভিটামিন সি রয়েছে। এটি রক্তনালির সংকোচন-প্রসারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং ডায়াবেটিস, জ্বর, নিদ্রাহীনতা, পাকস্থলী ও অগ্ন্যাশয়ের বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এছাড়া কোলস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে বিভিন্ন ধরনের হৃদরোগের হাত থেকে রক্ষা করে জাম্বুরা। নিয়মিত জাম্বুরা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয় ও পেটের নানা রকম হজমজনিত সমস্যার প্রতিকার হয়।


হজম সমস্যায়:

জাম্বুরাতে রয়েছে প্রচুর আঁশ। এটি খাদ্যের সঠিক পরিপাকে সাহায্য করে কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়রিয়ার মতো সমস্যা দূর করে। এর আঁশ পরিপাকতন্ত্রের ক্রিয়া সচল রাখে ও সঠিক মাত্রায় পরিপাক রস নিঃসৃত করে। ফলে খাদ্যের সর্বোচ্চ পরিপাক হয় এবং হজমের সমস্যা দূর করে।


ক্যানসার প্রতিরোধ:

জাম্বুরা আন্ত্রিক, অগ্ন্যাশয় ও স্তন ক্যানসার প্রতিরোধ করে। এর লিমোনয়েড নামক উপকরণ ক্যানসারের জীবাণুকে ধ্বংস করে ও এর আঁশ মলাশয়ের ক্যানসার প্রতিরোধ করে।


ওজন হ্রাস:

জাম্বুরাকে রয়েছে প্রচুর আঁশ। এটি দেহের অতিরিক্ত চর্বি ঝরাতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত জাম্বুরা গ্রহণে শরীরের ওজন কমে।


রক্তচলাচল বৃদ্ধি:

জাম্বুরাতে প্রচুর পটাশিয়াম রয়েছে। এটি আমাদের ধমনির আয়তন বৃদ্ধি করে রক্ত চলাচলের পথকে সুগম করে। ফলে দেহের বিভিন্ন প্রান্তে অক্সিজেন পৌঁছানো সহজ হয়, যা হৃৎপিণ্ডের ওপর চাপ কমায় এবং স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক ও অ্যাথেরোসক্লেরোসিসের আশঙ্কা হ্রাস করে।


মজবুত হাড়:

আমাদের দেহে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও সোডিয়ামের অভাব হলে অস্টিওপরোসি সহ হাড়ের নানাবিধ রোগ দেখা দেয়। জাম্বুরাতে এই খনিজ উপাদানসমূহ পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়।


বুড়িয়ে যাওয়া রোধ:

নিয়মিত জাম্বুরা খাওয়া হলে অকাল বার্ধক্যের চিহ্নসমূহ হতে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়া জাম্বুরায় স্পারমেডিন নামক একটি বিশেষ উপাদান রয়েছে। এটি বার্ধক্য প্রতিরোধে সহায়তা করে ও তারুণ্য ধরে রাখে।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মোছাঃ শিরীন সুলতানা
২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৯:১৫ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণরেটিং সহ শুভকামনা। আমার আপলোডকৃত ব্লগ দেখার অনুরোধ রইলো।


বিনয় কুমার বিশ্বাস
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০৯:১৯ অপরাহ্ণ

মুজিব জন্মশতবর্ষের শুভেচ্ছা রইল । পূর্ণ রেটিং ও লাইকসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত , রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি ।ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন। নিরাপদে থাকুন। ধন্যবাদ । মন্তব্য করুন।


মোঃ শফিকুল ইসলাম
১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০১:৩৬ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিংসহ অসংখ্য শুভকামনা । আমার কনটেন্টগুলো দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও রেটিং প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।