***** স্বাগতম মাহে রমজান **** ***** স্বাগতম মাহে রমজান ****

মোঃ রোকন উদ্দীন ০৪ এপ্রিল,২০২১ ১৯ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

***** স্বাগতম মাহে রমজান ****



বছর ঘুরে আবার আমাদের মাঝে ফিরে এসেছে মাহে রমজান।পবিত্র এই মাস এসেছে রহমত, বরকত মাগফিরাতের পয়গাম নিয়ে।অফুরন্ত বরকত আর পুণ্যে ভরা এই মাস জুরে আমরা আত্মনিয়োগ করব সিয়াম সাধনায়, যা পবিত্র তারাবির নামাজের মাধ্যমে পবিত্র এই মাসের মূল আকর্ষণ হল রোজা আর কোরআন।এ মাসকে কোরআনের মাসও বলা হয়। পবিত্র এই মাসে মুসলমানদেরকে বেশি বেশি করে কোরআন পড়ার এবং নেক আমল করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গে আমরা মহানবীর (সা.) বলেছেন শাবান মাসের শেষ দিনে পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে মহানবী (সা.) সাহাবীদের উদ্দেশ্যে একটি ভাষণ দিয়েছিলেন, তাতে তিনি বলেন: ‘হে লোক সকল! একটি মহিমান্বিত মাস তোমাদের দ্বারে সমাগত। এই পবিত্র মাসে এমন একটি রাত রয়েছে, যা হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ। এই মাসে দিনের বেলা রোজা রাখাকে আল্লাহ্ তোমাদের জন্য বাধ্যতামূলক (ফরজ) করেছেন এবং রাতের বেলা নামাজ পড়াকে (তারাবীহ নামাজ সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ্ ) তোমাদের জন্য করেছেন ঐচ্ছিক। তবে এই মাসে আল্লাহ নৈকট্য লাভের আশায় যে একটি ঐচ্ছিক (নফল) আমল করবে সে অন্য মাসের একটি ফরজ আমল করার সমান সওয়াব (পূণ্য) লাভ করবে। আর যে ব্যক্তি এই মাসে একটি ফরজ আদায় করবে, সে অন্য মাসে সত্তরটি ফরজ আদায় করার সমান সওয়াব লাভ করবে। আর মাসটি হল সবরের মাস এবং সবরের পুরুষ্কার হল জান্নাত। এছাড়া মাসটি হল দান-খয়রাত সেবার মাস। এটি এমন বরকতময় মাস, যে মাসে বিশ্বাসীদের রিজিক বৃদ্ধি পায়। রমজান মাসে যে ব্যক্তি রোজাদারকে ইফতার করাবে তার গোনাহ মাফ করা হবে, দোযখের আগুন থেকে সে মুক্তি পাবে এবং রোজাদার রোজা রেখে যে সওয়াব পাবে, সেও তার মত সমান সওয়াব পাবে; তবে তাতে রোজাদারের সওয়াব একটুও নষ্ট হবে না।স্বয়ং আল্লাহ্ রাব্বুল লামীন প্রসঙ্গে ঘোষণা করেছেন: ‘রমজান সেই মাস, যে মাসে কোরআন নাযিল করা হয়েছে; যা সমগ্র মানব জাতির জন্য হেদায়াত, সুস্পষ্ট পথ-নির্দেশ এবং সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারী। তোমাদের মধ্যে যেই মাসের সাক্ষাৎ পাবে, সে যেন রোজা রাখে।’ - আল বাকারা: ১৮৫ পবিত্র কোরআনের এই আয়াতটি পবিত্র রমজান এবং মহাগ্রন্থ আল কোরআনের মধ্যেকার সম্পর্ককে প্রতিষ্ঠিত করেছে। আমরা জানি, মহানবী (সা.) নবুওয়ত লাভের পূর্বে রমজান মাসে হেরা গুহায় ধ্যান করতেন। সেখানে ধ্যানরত অবস্থায় ক্বদরের রাতে আল্লাহ নির্দেশে ফেরেশতা জিবরিল (.) মহানবীর নিকট সর্ব প্রথম সূরা আলাকের প্রথম পাঁচ আয়াত নাযিল করেন। এর মাধ্যমে স্রষ্টার সাথে সৃষ্টির, আরশের সাথে মর্ত্যরে মানুষের মধ্যে যোগাযোগ শুরু হয়। এটি মানব ইতিহাসে এক বিরাট ঘটনা। কারণেই রমজান মাস কোরআনের মাস। স্রষ্টার সাথে সৃষ্টির সম্পর্ক স্থাপনের মাস। দ্বিতীয়ত: যখন থেকে রমজান মাসের রোজা রাখা বাধ্যতামূলক বা ফরজ করা হয়, তখন থেকেই আল্লাহ রাসূল (সা.) প্রতিটি রমজান মাসে ফেরেশা জিবরিল (.)-কে সাথে নিয়ে কোরআন খতম করতেন। জিবরিল . কোরআন তেলাওয়াত করে নবীকে শোনাতেন এবং আল্লাহ রাসূলও কোরআন তেলাওয়াত করে জিবরিল .কে শোনাতেন। রমজান মাসের প্রতি রাতে ঘটনা ঘটত। মহানবীর কন্যা হযরত ফাতিমা (রাঃ) বলেন, যে বছর মহানবী (সা.) ইন্তেকাল করেন সে বছর তিনি দুবার কোরআন খতম করেন। তৃতীয়ত: তারাবীহ নামাজের মাধ্যমে পুরো মাসে একবার কোরআন খতম করার জন্য মুসলমানদেরকে বলা হয়েছে। যার কারণে প্রতি বছর রমজান মাসে বিশ্বব্যাপী মুসলমানরা তারাবীহ নামাজের মাধ্যমে কোরআন খতম করে আসছেন। মহানবী হযরত মুহাম্মদের বয়স যখন চল্লিশ বছর পূর্ণ হয় তখন রমজান মাসের ক্বদরের রাত্রিতে প্রথম অহী নাযিল হয়। প্রসঙ্গে আল্লাহ্ বলেন, ’নিশ্চয়ই্আমি কোরআনকে ক্বদরের রাতে নাযিল করেছি। তুমি কি জানো ক্বদরের রাত কী? ক্বদরের রাত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।’ - সূরা আল ক্বদর: আয়াত -) এছাড়া সূরা দুখানেও বলা হয়েছে : জেনে রাখো, আমি কোরআনকে নাযিল করেছি এক মহিমান্বিত রাতে।’ -(দুখান: ) আমরা জানি, সমগ্র কোরআন মহানবীর (সা.) তেইশ বছরের নবুওয়তি জিন্দেগীতে প্রয়োজন অনুসারে অল্প অল্প করে নাযিল হয়েছিল, কিন্ত তার আগে সমগ্র কোরআন একসাথে লাওহে মাহফুজে সংরক্ষণ করা হয় এবং তাও করা হয়েছিল ক্বদরের রাত্রিতেই।আসুন যার যার অবস্হান থেকে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করি।সিয়াম সাধনায় ব্রত হয়।হায় ! আল্লাহ রমজানের পূর্ন সাওয়াব আমাদের নসিব কর।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মোঃ আবুল কালাম
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৯:১১ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন রইলো। আমার আপলোকৃত কনন্টে দেখে আপনার মূল্যবান মতামত, লাইক ও পুর্ণ রেটিং প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ রইলো ।


মোঃ জাফর ইকবাল মন্ডল
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৮:১৪ অপরাহ্ণ

আপনার কর্মদক্ষতা ও আন্তরিকতা আপনাকে সফলতার শিখরে পৌছবে।লাইক ও পূর্ণরেটিং সহ আপনার জন্য শুভ কামনা নিরন্তর।আমার এ পাক্ষিকে ০৩/০৪/২০২১ ইং তারিখে আপলোডকৃত পানিতে ডোবা ৪র্থ প্রাথমিক বিজ্ঞান কনটেন্ট দেখে লাইক,রেটিং ও গঠন্মুলক পরামর্শ প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।কনটেন্ট লিঙ্কঃ https://bit.ly/3sQCOGA


লুৎফর রহমান
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৫:০৫ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো। আমার এ পাক্ষিকে আপলোডকৃত ৫৬ তম কনটেন্ট ও ব্লগ দেখে লাইক,গঠন মূলক মতামত ও রেটিং প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। কনটেন্ট লিংকঃ https://www.teachers.gov.bd/content/details/913039


মোছাঃ নাইচ আকতার
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৪:৫৮ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ স্যার। আমার কন্টেন্ট ও ব্লগ দেখার জন্য অনুরোধ রইল।


মোঃ সাইফুর রহমান
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৪:৩২ অপরাহ্ণ

অনেক সুন্দর উপস্থাপন। লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইলো। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এবং নিরাপদে থাকবেন। ধন্যবাদ।


মোহাম্মদ শাহাদৎ হোসেন
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইলো। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এবং নিরাপদে থাকবেন। আবারও ধন্যবাদ।


শেখ মোঃ সোহেল রানা
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ১০:২৭ পূর্বাহ্ণ

শ্রেণি উপযোগী ও মানসম্মত কনটেন্ট আপলোড করে বাতায়নকে সমৃদ্ধ করার জন্য আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ। লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইলো। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এবং নিরাপদে থাকবেন।


মোঃ রোকন উদ্দীন
০৪ এপ্রিল, ২০২১ ১০:২০ পূর্বাহ্ণ

আমিন