শহীদ মিনার , কানিজ মায়েরা - খিলগাঁও গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, ঢাকা

কানিজ মায়েরা ১৯ আগস্ট,২০২১ ১৪৪ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

প্রথম শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছিল অতিদ্রুত এবং নিতান্ত অপরিকল্পিতভাবে। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ছাত্ররা ১৯৫২ খ্রিষ্টাব্দের ২৩ ফেব্রুয়ারি বিকেলে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ শুরু করে রাত্রির মধ্যে তা’ সম্পন্ন করে। শহীদ মিনারের খবর কাগজে পাঠানো হয় ঐ দিনই। শহীদ বীরের স্মৃতিতে - এই শিরোনামে দৈনিক আজাদ পত্রিকায় ছাপা হয় শহীদ মিনারের খবর।[১]

মিনারটি তৈরি হয় মেডিকেলের ছাত্র হোস্টেলের (ব্যারাক) বার নম্বর শেডের পূর্ব প্রান্তে। কোণাকুণিভাবে হোস্টেলের মধ্যবর্তী রাস্তার গা-ঘেঁষে। উদ্দেশ্য বাইরের রাস্তা থেকে যেন সহজেই চোখে পড়ে এবং যে কোনো শেড থেক বেরিয়ে এসে ভেতরের লম্বা টানা রাস্তাতে দাঁড়ালেই চোখে পড়ে। শহীদ মিনারটি ছিল ১০ ফুট উচ্চ ও ৬ ফুট চওড়া। মিনার তৈরির তদারকিতে ছিলেন জিএস শরফুদ্দিন (ইঞ্জিনিয়ার শরফুদ্দিন নামে পরিচিত), ডিজাইন করেছিলেন বদরুল আলম; সাথে ছিলেন সাঈদ হায়দার। তাদের সহযোগিতা করেন দুইজন রাজমিস্ত্রী। মেডিকেল কলেজের সম্প্রসারণের জন্য জমিয়ে রাখা ইট, বালি এবং পুরান ঢাকার পিয়ারু সর্দারের গুদাম থেকে সিমেন্ট আনা হয়। ভোর হবার পর একটি কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয় মিনারটি। ঐ দিনই অর্থাৎ ২৪ ফেব্রুয়ারি সকালে, ২২ ফেব্রুয়ারির শহীদ শফিউরের পিতা অনানুষ্ঠানিকভাবে শহীদ মিনারের উদ্বোধন করেন। ২৬ ফেব্রুয়ারি সকালে দশটার দিকে শহীদ মিনার উদ্বোধন করেন আজাদ সম্পাদক আবুল কালাম শামসুদ্দিন। উদ্বোধনের দিন অর্থাৎ ২৬ ফেব্রুয়ারি পুলিশ ও সেনাবাহিনী মেডিকেলের ছাত্র হোস্টেল ঘিরে ফেলে এবং প্রথম শহীদ মিনার ভেঙ্গে ফেলে। এরপর ঢাকা কলেজেও একটি শহীদ মিনার তৈরি করা হয়, এটিও একসময় সরকারের নির্দেশে ভেঙ্গে ফেলা হয়।[১]

অবশেষে, বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেবার পরে ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এর নকশা করেছিলেন ভাস্কর হামিদুর রহমান। কিন্তু ১৯৫৮তে ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান পাকিস্তানে সামরিক আইন জারীর পর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীকালে লেফটিন্যাণ্ট জেনারেল আযম খানের আমলে এর নির্মাণ কাজ পুনরায় শুরু করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত একটি কমিটি এর নির্মাণ কাজের তত্ত্বাবধান করে। মূল নকশা ছেঁটে-কেটে দ্রুত নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়। মূল নকশার ফোয়ারা ও নভেরা আহমেদ এর ম্যুরাল ইত্যাদি বাদ পড়ে। নির্মাণ কাজ শেষ হয় ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দের শুরুতে। ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দের ২১শে ফেব্রুয়ারি ভাষা আন্দোলনের অন্যতম শহীদ ব্যক্তিত্ব আবুল বরকতের মাতা হাসিনা বেগম কর্তৃক নতুন শহীদ মিনারের উদ্বোধন করা হয়। [[১]

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
লুৎফর রহমান
২০ আগস্ট, ২০২১ ০১:০৩ পূর্বাহ্ণ

Best wishes with full ratings. Sir/Mam. Please give your like, comments and ratings to watch my all contents PowerPoint, blog, image, video and publication of this fortnight. Link: PowerPoint: https://www.teachers.gov.bd/content/details/1099411 Blog: https://www.teachers.gov.bd/blog-details/618264 Video: https://www.teachers.gov.bd/content/details/1099955 Video 2: https://www.teachers.gov.bd/content/details/1092580 Publication: https://www.teachers.gov.bd/content/details/1098917 Batayon ID: https://www.teachers.gov.bd/profile/Lutfor%20Rahman


মোঃ সাইফুর রহমান
১৯ আগস্ট, ২০২১ ১১:০৯ অপরাহ্ণ

প্রিয় বাতায়নের সন্মানিত সদস্যবৃন্দ, আসসালামু আলাইকুম ওয়ারহমাতুল্লাহ, আমি বেশকিছু দিন যাবত লক্ষ্য করছি। বাতায়নের সন্মানিত কিছু সদস্য কনটেন্ট এ দিক নির্দেশনামূলক কোনো পরামর্শ না দিয়ে প্রতিহিংসার বশত রেটিং কম দিতেছেন। প্রিয় স্যার আমরা কাউকে নিরুৎসাহিত না করি। তাহলে অনেকেই বাতায়ন থেকে বিদায় নিবে। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে বাস্তবায়িত করি। ২০২১ সালের মধ্যে সকল শিক্ষককে বাতায়নের সদস্য করি। কারো কনটেন্ট যদি মানসম্মত না হয়। তাহলে তাকে গঠনমূলক পরামর্শ দেই যাতে তার কনটেন্ট মানসম্মত হয়। আমরা প্রানের বাতায়নে সত্যতার সাথে কাজ করে যাই। এক দিন আপনার সাফল্য আসবেই। পরিশ্রম কোনো দিন বিথা যায় না। আমার লেখায় কোনো ভুল হলে ক্ষমা করবেন। সকলের জন্য শুভকামনা রইল।


দেলওয়ারা বেগম
১৯ আগস্ট, ২০২১ ১০:২৯ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইল। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।


মোহাম্মদ শাহাদৎ হোসেন
১৯ আগস্ট, ২০২১ ১০:২২ অপরাহ্ণ

👉 লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইলো। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন এবং নিরাপদে থাকবেন। আবারও ধন্যবাদ।


আবু নাছির মোঃ নুরুল্লা
১৯ আগস্ট, ২০২১ ১০:১৬ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা রইলো। আমার কন্টেন্ট দেখে লাইক, কমেন্টস, রেটিং এবং গঠনমূলক মতামত প্রদানের জন্য অনুরোধ করছি।