পাপ করিলে কি কি অপকার হয় উহার বিস্তারিত বর্ণনা

মোঃ শামসুল হক ২৮ ফেব্রুয়ারি ,২০২৩ ৬৪ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()


১। পাপের দ্বারা মানুষ এলেম হইতে বঞ্চিত হইয়া যায়, কেননা এলেম একটি বাতেনী নূর বিশেষ, আর সেই নূর গোনাহের দরুণ নিভিয়া যায়। ইমাম মালেক (রঃ) ইমাম শাফেয়ী (রঃ) কে এই বলিয়া অছিয়ত করিয়াছিলেন যে, আমি দেখিতেছি যে, আল্লাহ্ পাক তোমার অন্তরে একটা নূর পয়দা করিয়াছেন কাজেই তুমি সেই নূরটাকে গোনাহের অন্ধকার দ্বারা ধ্বংস করিয়া দিওনা।
২। গোনাহের দরুণ রিজিকের বরকত কমিয়া যায়।
৩। গোনাহের দরুণ আল্লাহর সহিত সম্পর্কহীনতা পয়দা হয়, সামান্যতম বিবেক সম্পন্ন ব্যক্তিও ইহা বুঝিতে পারে।

৪। পাপের দরুণ মানুষের সহিতও সম্পর্ক কমিয়া যায়। বিশেষ করিয়া নেক লোকের সহিত উঠাবসা করিতে মন চাহে না। এইভাবে নেক লোকের বরকত হইতে তাহারা বঞ্চিত হইয়া যায়। জনৈক বুজুর্গ বলেন, আমি যদি কোন গোনাহ্ করিয়া ফেলি তবে উহার তাছীর আমার স্ত্রী ও আমার জানোয়ারের মধ্যে অনুভব করিতে থাকি। যেহেতু তাহারা তখন আর আমার কথা পূর্বের ন্যায় শুনিতে চাহে না।
৫। গোনাহগার ব্যক্তি কাজ কারবারে অনেক বাধা বিপত্তির সম্মুখীন হয়। তার বিপরীত পরহেজগারী এখতিয়ার করিলে কামিয়াবীর রাস্তা বাহির হইয়া
যায় ।
৬। গোনাহ্ করিলে অন্তর মরিয়া যায়, এবং উহার তাছীর পরিস্কারভাবে চেহারায় ফুটিয়া উঠে অর্থাৎ লোকটি সুন্দর হইলেও তাহার চেহারায় নূর থাকে না। উহার প্রভাব অন্তরে প্রতিফলিত হয়, যদ্বারা সে বেদআত ও অপকর্মে লিপ্ত হইয়া ক্ৰমান্বয়ে ধ্বংস হইয়া যায়।
৭। গোনাহের দরুণ শরীর এবং অন্তর দুর্বল হইয়া পড়ে। অন্তর দুর্বল হওয়ার অর্থ হইল নেক কাজের আগ্রহ হ্রাস পাইতে পাইতে অবশেষে উহা সম্পূর্ণভাবে তিরোহিত হইয়া যায়। বাকী শারীরিক শক্তি মানসিক শক্তির অধীন
হওয়ার দরুণ শরীরও ক্রমান্বয়ে নিস্তেজ হইয়া পড়ে। ভাবিয়া দেখুন পারশ্য ও রোম অধিবাসীগণ অধিক শক্তিশালী হওয়া সত্বেও মানসিক দুর্বলতার দরুণ ছাহাবাদের সামনে টিকিয়া উঠিতে পারে নাই।

৯। পাপের দরুণ হায়াত কমিয়া য়ায়। হাদীছে বর্ণিত আছে, নেক কাজের দ্বারা হায়াত বৃদ্ধি পায়। কাজেই উহা দ্বারা প্রমাণিত হইল যে, বদ কাজের দরুণ হায়াত কমিয়া যায়। এখানে হায়াত কি করিয়া কম বেশী হইতে পারে এই বিষয়ে সন্দেহ পোষণ করা অবান্তর। কেননা শুধু যে হায়াত মউত তকদীরে লেখা আছে এমন নহে। রিজিক দৌলত, সুখ-দুঃখ, আমীরী-গরীবী সবকিছুই তকদীরে লেখা আছে, তবুও আমরা সব কাজে চেষ্টা করিয়া থাকি এবং চেষ্টা করার জন্য আমাদের প্রতি আদেশ করা হইয়াছে। তকদীরের উপর নির্ভর করিয়া বসিয়া থাকিতে বলা হয় নাই। সুতরাং তকদীরে হায়াত মউত লেখা, আছে বিধায় আমরা চেষ্টা ও সৎকাজ ত্যাগ করিতে পারি না।'
১০। একটি গোনাহ্ অন্য একটি গোনাহের সহায়ক হইয়া পাপী ব্যক্তি ক্রমান্বয়ে পাপের ভিতর ডুবিয়া যায়। অবশেষে উহা এমন অভ্যাসে পরিণত হয় যে, উহা হইতে আর পরিত্রাণ পাওয়া যায় না।
১১। গোনাহ্ করিতে থাকিলে মানুষ তওবার তওফীক্ব হারাইয়া ফেলে এমন কি ঐ অবস্থাতেই তাহার মৃত্যু আসিয়া যায়।
১২। অধিক গোনাহ্ করিতে করিতে উহা যে একটি অন্যায় কাজ এই ধ্যান ধারণা অন্তর হইতে মিটিয়া যায়। বরং ক্রমান্বয়ে নির্লজ্জভাবে সগৌরবে প্রকাশ্যে উহা করিতে থাকে। এইরূপ ব্যক্তি আল্লাহ্র ক্ষমা হইতে দূরে সরিয়া,
পড়ে। যেমন হুজুরে পাক (ছঃ) এরশাদ ফরমাইয়াছেন, যাহারা প্রকাশ্যভাবে গোনাহের কাজ করে তাহারা ব্যতীত আমার সমস্ত উম্মতই ক্ষমার যোগ্যতা রাখে। প্রকাশ্য ভাবে গোনাহ্ করার অর্থ এই যে, আল্লাহ্ তায়ালা তাহার, গোনাহের কথা গোপন রাখেন, কিন্তু বান্দা নিজেই সকাল বেলায় নিজেকে বেইজ্জত করিয়া নিজের পাপের কথা এইভাবে বলিয়া বেড়ায় যে, আমি অমুক দিন অমুক পাপ কাজ করিয়াছি অথচ আল্লাহ্ পাক তাহার পাপকে গোপন রাখিয়াছিলেন। আবার পাপ কখনও কুফুরীর সীমায় পৌঁছিয়া যায় জনৈক বুজুর্গ বলেন, তোমরা গোনাহের ভয় করিতেছ, কিন্তু আমি কুফুরের ভয় করিতেছি।
১৩। যে কোন পাপই আল্লাহর দুশমনদের ত্যাজ্য সম্পত্তি। সুতরাং পাপী ব্যক্তি যেন আল্লার শত্রুদের উত্তরাধিকারী। যেমন বালকদের সহিত অপকর্ম করা লুত (আঃ) -এর কওমের কৃত ত্যাজ্য সম্পত্তি আর ওজনে কম দেওয়া শোয়ায়েব (আঃ) এর কওমের ত্যাজ্য সম্পত্তি, অত্যাচার অবিচারের দরুণ অশান্তি সৃষ্টি করা ফেরাউনদের মীরাছ, জুলুম ও অহংকার কওমে হুদের মীরাছ। অতএব পাপীষ্ঠ লোকেরা উক্ত পাপী সম্প্রদায়ের পরিত্যক্ত সম্পত্তিরই অংশ ভোগ করিতেছে। হজরত এবনে ওমর হইতে বর্ণিত আছে, হুজুর (ছঃ)
এরশাদ করেন
-

من تشبه بقوم فهو منهم.
অর্থাৎ যে ব্যক্তি যে কোন সম্প্রদায়ের অনুসরণ করিবে তাহাকে উক্ত সম্প্রদায় ভুক্ত বলিয়া গণ্য করা হইবে।
১৪। গোনাহগার ব্যক্তি আল্লাহতালার নিকট ঘৃণিত ও লাঞ্ছিত হইয়া যায় । আর যে আল্লাহ্র দরবারে লাঞ্চিত হয় মানুষের নিকট তাহার কোন ইজ্জত থাকে না। আল্লাহ্ পাক এরশাদ করেন।
وَمَنْ يُهِنِ اللَّهُ نَمَا لَهُ مِنْ تُكْرِعِ .
আল্লাহ্ যাহাকে বেইজ্জত করেন কেহই তাকে ইজ্জত দিতে পারে না।

চলবে==

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মোঃ শফিকুল ইসলাম
০১ মার্চ, ২০২৩ ০৭:১৬ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিংসহ আপনার জন্য শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার ৮৭তম কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত, রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।


মোঃ মুমিনুল হক
২৮ ফেব্রুয়ারি , ২০২৩ ১০:৪০ অপরাহ্ণ

🌹🌹লাইক রেটিং সহ শুভকামনা রইলো। সুপ্রিয় বাতায়নপ্রেমী শিক্ষক-শিক্ষিকা, অ্যাম্বাসেডরবৃন্দ, সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা, সেরা উদ্ভাবক, সেরা অনলাইন পারফর্মগণ লাইক, রেটিংসহ আমার ১২৮ তম কন্টেন্ট দেখে আপনাদের সুপরামর্শ কামনা করছি। সবাই সুস্থ থাকবেন, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখবেন এবং নিয়মিত মাস্ক পড়বেন।🌹🌹 কন্টেন্ট লিংক https://www.teachers.gov.bd/content/details/1387928🌿