প্রকাশনা

মাস্টর বলবেন না, হার্টে লাগে; অামরা শিক্ষক

মোহাম্মদ মহসিন মিয়া ০৪ অক্টোবর,২০১৮ ২০৭ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৪.২৫ রেটিং ( )

বিদ্যালয় পরিচালনায় ম্যানেজিং কমিটি বিদ্যালয়ের অভিভাকই বটে৷ অাবার বিদ্যালয় যদি বেসরকারি হয় তাহলে তো বিদ্যালয়ের সকল নীতি নির্ধারণ ও পরিচালনার ক্ষমতা কমিটির উপরই নির্ভর করে ৷গণতান্ত্রিক পন্থায় দেশ শাসনের মতো বিদ্যালয় পরিচালনায় স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও অধিক উদ্দিপনার সহিত বিদ্যালয় চালাতে ম্যানেজিং কমিটির প্রয়োজনীয়তা অত্যাধিক ৷ বিদ্যালয়ের অায়- ব্যয়, উন্নতি, বিভিন্ন ফিস নির্ধারণ তথা বিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি উন্নয়ন ও উত্তোরণে ম্যানেজিং কমিটি বিশেষ ভুমিকা পালন করে থাকে৷ বলতে গেলে বিদ্যালয়ের এমন কোন কাজ ও সিদ্ধান্ত নেই যা কমিটির সিদ্ধান্ত ব্যতীত সম্পন্ন হতে পারে৷ কিন্তু ক্ষমতায় অাসীন ও সার্বিক তত্ত্বাবধায়ক সে কমিটির সদস্য কি রকম হওয়া চাই ৷ অামরা সবাই জানি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার যোগ্যতা কমপক্ষে স্নাতক ডিগ্রি পাস ৷ বাস্তবে এখন অনার্সসহ মাস্টার্সধারীরাও এখন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে চাকরি নিয়ে থাকে ৷ অার এখান থেকে ছাত্র -ছাত্রীরা এসএসসি পাস করে থাকে ৷ তাহলে তাদেরকে যারা পরিচালনা করবেন তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা কি হওয়া দরকার? অক্ষর জ্ঞান সম্পন্ন? পঞ্চম কিংবা অষ্টম শ্রেণি পাস?এসএসসি পাস? নাকি তার চেয়েও বেশি? অামাদের দেশের গ্রামাঞ্চলের স্কুলগুলোর দিকে তাকালে দেখা যায় সেখানে ম্যানেজিং কমিটির কিছ কিছুু সদস্য অক্ষর জ্ঞান সম্পন্ন বা ষষ্ঠ-অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ুয়া ৷ কাঁদা মাটি দিয়ে যেমন দশ তলাভবন তৈরি করা যায় না ; বড়জোড় একটি ছোট কুড়ে ঘর তৈরি করা যায়, তেমনি মূর্খ লোক দিয়ে স্কুল চালনায় বড় কিছু অাশা করা যায় না ;বড় জোড় গ্রাম্য দরবারের সর্দারি চালানো যায় ৷ সবাইতো জানেন ট্রলারের ইঞ্জিন দিয়ে জাহাজ বা বিমান চলবে না, ব্লেড দিয়ে গাছ কাটা যাবে না, কাঠ মিস্রি দিয়ে টুইন টাওয়ার বানানো যাবে না ,অশিক্ষিতদের দিয়েও সুষ্ঠভাবে ও নৈপুন্যতার সহিত শিক্ষা পরিচালনা করা যাবে না ৷ জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা অাছে, বোকামির সীমাবতাধতা নাই;সিদ্ধান্তের শেষ অাছে,তর্কের শেষ নাই ৷এরিস্টটল বলেছিলেন, জ্ঞানহীন মানুষ পশুর সমান ৷ মার্ক টোয়েন বলেছিলেন, নির্বোধদের সাথে তর্কে জড়ালে তারা তাদের নোংরা অভিজ্ঞতা দিয়ে অাপনাকে নিম্নস্তরে নামিয়ে পরাজিত করবে ৷ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অশিক্ষিতরা কি ভূমিকা পালন করবে ? কেউ দশ ফুট পানির নিচে ডুব দিয়ে যেতে পারলে পনের ফুট পানির নিচের কোন কিছুই সে ছুইতে পারবে না;যার শিক্ষা নাই সে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার সহায়ক কিছু করতে পারবে না ৷ লুঙ্গি পড়ে, হাতে বিড়ি নিয়ে স্কুলের বারান্দা দিয়ে কমিটির সদস্য হেঁটে এমএ পাস শিক্ষককে সে কি পরামর্শ দিবে? নিজের নামটি পর্যন্ত লিখতে পারে না তারাও হয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ! গ্রামের সাবেক ইউপি মেম্বারও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হয় ৷ অাগামী ২৬/১১/২০১৬ তারখে তিতাসের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছ ৷ জানা গেছে সেখানে নয় জন পুরুষ প্রার্থীর মধ্যে ছয় জনই কেউ প্রাইমারি স্কুল পর্যন্ত পড়েছে অাবার কেউ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দুই তিনটি ক্লাশ পড়েছে ৷ অার বাকি তিন জন এসএসসি পাস৷ কোন শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট না থাকা মহিলা প্রার্থী নাকি বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়ে গেছেন ৷এক হাই স্কুলের সদস্যকে কোন ব্যাপারে কথা বললে তিনি বলতেন, ''অামি এ ব্যাপারটি মাইনাস(ম্যানেজ)করে নিব'' এবং অারেক সদস্য কোন সমন্ধে কিছু জানলে বলতেন, ''অামি এ ব্যাপারে অনুগত(অবগত)অাছি৷'' অাবার কিছু সদস্য স্কুলে এসে এলাকার কিংবা বংশের ও কিছু সুযোগ সুবিধা দিতেও ব্যস্ত থাকেন৷ ওনারা এলাকা ও বংশ ভিত্তিকও ছাত্রের বেতন ফ্রি করার ব্যবস্থা করতে বেশ তৎপর থাকেন ৷ এক স্কুলের এক সদস্য সকালে লুঙ্গি পড়ে স্কুলে গিয়েই প্রধান শিক্ষকের চেয়ারে বসে পড়তেন ৷ প্রধান শিক্ষক তাকে ভদ্রতার সহিত একদিন বললেন,''চেয়ার থেকে যদি উঠতেই হয়, তাহলে বসেন কেন?'' তিনি কিন্তু ক্ষমতা দেখাতেন না কিংবা অভদ্রতাও দেখাতেন না; বরং তিনি বুঝতেনই না যে প্রধান শিক্ষকের চেয়ারে কেউ বসতে পারে না৷ যারা চেয়ারে বসা সম্পর্কে জানেন না তারা কিভাবে স্কুল পরিচালনার দায়িত্ব পান? যদি কমিটির সদস্য হওয়ার জন্য কমপক্ষে এইচএসসি পাসের বিধান রাখা হতো তাহলে হয়তো শিক্ষিতরা বিদ্যালয়মুখী হতো এবং টাকার জোড়ে অশিক্ষিতরা স্কুলের সদস্য হতে পারতো না ৷ এতে শিক্ষার মান উন্নয়ণে অবদান রাখার জন্য অারেক দল অালোকিত মুখ পাওয়া যেত ৷ পরিশেষে, মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মহোদয়ের সদয় দৃষ্টি অাকর্ষণ পূর্বক বলতে চাই যে, তিনি বাংলাদেশের শিক্ষা উন্নয়ণে যে অবদান রেখে যাচ্ছেন তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার এবং অামাদের দেশের মানুষ তাঁর কাছে ঋনী ৷ এবার কমিটি গঠনে সদস্য হওয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এইচএসসি পাস নির্ধারন করার জন্য তাঁর সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি ৷ মোঃ মহসিন মিয়া সহকারি শিক্ষক,ইংরেজি বড় গোবিন্দপুর এএমবি উচ্চ বিদ্যালয় চান্দিনা,কুমিল্লা৷

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মেফতাহুন নাহার
২৫ মে, ২০২০ ০৯:০৪ অপরাহ্ণ

শুভেচ্ছা -অভিনন্দন ও শুভকামনা। আমার কনটেন্টগুলো দেখে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট দেয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন
৩০ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:১৩ পূর্বাহ্ণ

অহ স্যার গ্রেড। শুভ কামনা রই। দারুন কথা লিখেছে।